শনিবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৭

এই জেরুজালেম, সেই জেরুজালেম...।।আনসারি মুহম্মদ তৌফিক




এই সেই শহর। যে শহরের এমন কোনো স্থান নেই যেখানটায় মানুষের রক্তের ছাপ পড়ে নি। যুগে যুগে রাজা বাদশাহরা এই শহরের কর্তৃত্ব পাওয়ার জন্য প্রয়োজনে লাখ লাখ নিরীহ মানুষ হত্যা করেছে। এই শহরের প্রতি দূর্বলতা যে শুধুমাত্র রাজা বাদশাদেরই ছিল তা নয়, নিরীহ মানুষরাও এই শহরের জন্য নিজেদের প্রাণ বিলিয়ে দিয়েছে। ভাবতেই অবাক লাগে, প্রতিষ্ঠার সাড়ে তিন হাজার বছর পরেও এই শহরের চাহিদা বিন্দুমাত্র কমে নি। বরং দিনকে দিন বেড়েই চলছে ! কত কবি এই শহরকে নিয়ে কবিতা লিখেছে, কত ঔপন্যাসিক এই শহরের দৈনন্দিন জীবন নিয়ে উপন্যাস রচনা করেছে, কত শিল্পী এই শহরকে মনের মাধুরী মিশিয়ে তুলির আচড়ে ফুটিয়ে তুলেছে ক্যানভাসে- তার কি কোনো হিসেব আছে ?
.
বিস্ময়কর হলেও সত্য, এই একটিমাত্র শহরই পৃথিবীতে আছে যা ৫২ বার আক্রমনের শিকার হয়েছে। এই শহরের ভাগ্য এতই মন্দ যে, তা ৪৪ বার দখল-পুনর্দখল হয়েছে, ২৩ বার অবরোধের মুখে পড়েছে। আর পুরোপুরি ধ্বংশ হয়েছে কমপক্ষে ২ বার ! তবুও এই শহর টিকে আছে। শুধু টিকে আছে বললে ভুল হবে, সাড়ে তিন হাজার বছর ধরে এই শহর প্রভাবিত করে চলেছে সমগ্র পৃথিবীর মানুষকে। এই শহরকে বলা হয় এক ঈশ্বরের আবাসস্থল, দুই জাতির রাজধানী ও তিন ধর্মের উপাসনালয়। হ্যা, আমি জেরুজালেমের কথাই বলছি। যাকে নিয়ে এখনো মানুষের উন্মাদনার কমতি নেই। ঐতিহাসিকরা বলেন, এই শহর রক্তের ওপর প্রতিষ্ঠিত। এই শহরের ইতিহাস মানুষের রক্ত নিয়ে উৎসব করার ইতিহাস।
.



সত্যিই তাই। খ্রীষ্টপূর্ব ১১০০ সালে বাদশা ডেভিড (দাউদ) দ্বারা প্রতিষ্ঠিত এবং তাঁর মৃত্যুর পর পুত্র সলোমন (সোলায়মান) এর হাতে সুসজ্জিত জেরুজালেমের ইতিহাস আসলেই মর্মান্তিক সব ট্রাজেডিতে পরিপূর্ণ। এই শহর নিয়ে প্রথমে ইহুদী (বনি ইসরাইল), রোমান ও পারসিকদের মধ্যে দ্বন্দ্ব হয়। তারপর তাতে যোগ দেয় খ্রীষ্টানরা। সর্বশেষে সেই দখলদারিত্বের প্রতিযোগীতায় অংশ নেয় মুসলিমরা। জেরুজালেমের নিয়ন্ত্রন ইহুদীদের হাত থেকে একসময় রোমানদের অধিকারে আসে।
মুসলিমদের আগে ৫০০ বছর ধরে এই শহরের নিয়ন্ত্রন ছিল রোমানদের হাতে। রোমানরা ছিল খ্রীষ্টান। তখন ইহুদীদের জেরুজালেমে প্রবেশের অধিকার ছিল না। জেরুজালেমের ঐতিহাসিক দৃশ্যপটে যখন মুসলিমদের প্রতিনিধি হয়ে ওমর বিন খাত্তাব (হযরত ওমর) এই শহর বিজয় করেন তখন তিনি ইহুদীদের এই শহরে প্রবেশ করার অধিকার দেন। হযরত ওমর (রা:) যখন জেরুজালেমে যান, তখন সেখানকার দায়িত্বরত খ্রীষ্টান পাদ্রী সফ্রোনিয়াস তাঁকে পবিত্র উপসনালয়ে (বায়তুল মোকাদ্দাস) নামাজ পড়ার জন্য অনুরোধ করন। কিন্তু ওমর তাতে সম্মতি দেন নি। কারন, তাঁর আশঙ্কা ছিল তাহলে ঐতিহাসিকভাবে স্বীকৃত এই পবিত্র স্থানটি পরবর্তীতে মুসলিমদের হাতে পড়ে নামাজের স্থান হিসেবে ব্যবহৃত হতে পারে।
.
চারশ বছর মুসলিম শাসনের পর তা পুনরায় খ্রীষ্টানদের অধিকারে আসে। উল্লেখ্য, খ্রীষ্টান শাসনামলে জেরুজালেমে কখনোই ইহুদীদের প্রবেশাধিকার ছিল না। কারন, ইহুদীরাই খ্রীষ্টানদের নবী হযরত ঈসা (আ:) [যীশু খ্রীষ্ট] কে হত্যা করেছিল। তবে এক্ষত্রে হযরত ওমর (রা:) যথেষ্ট উদারতার পরিচয় দিয়েছিলেন। ওমরের পরে সুলতান সালাহউদ্দিন পুনরায় জেরুজালেম দখল করেন। সালাউদ্দিনের পরে আবার খ্রীষ্টানরা। এভাবে দখল-পুনর্দখলের খেলা চলছিল মুসলিম ও খ্রীষ্টানদের মাঝে। সর্বশেষ ১৯৪৮ সালে জর্ডান কর্তৃক জেরুজালেম মুসলমানদের অধিকারে আসে। ১৯৬৭ সালের আরব-ইসরাইল যুদ্ধে তা পুনরায় ইহুদীদের দখলে চলে যায়।
.
ইতিহাস বলে, জেরুজালেমের প্রশ্নে ইহুদী খ্রীষ্টান ও মুসলিম জাতি একে অন্যকে কখনো তিল পরিমাণ ছাড় দেয় নি। বর্তমানে ইব্রাহিমের পুত্র ইসহাকের বনি ইসরাইলদের বংশধর হিসেবে ইহুদীদের প্রতিনিধিত্ব করছে ইসরাইলিরা আর ইব্রাহিমের অপর পুত্র ইসমাইলের উত্তরসুরী আরবদের প্রতিনিধিত্ব করছে ফিলিস্তিনীরা। জানি না, হাজার বছরের সেই প্রতিশোধপরায়ণতা কোথায় গিয়ে শেষ হয়। শুধু এটুকুই বলবো, রক্তপাত বন্ধ হোক। জেরুজালেম আবারো ফিরে যাক তার সুসজ্জিত অতীতে।

কোন মন্তব্য নেই:

ডিপ্রেশন নিয়ে দুয়েক কথা

  আমি ডিপ্রেশনে ভুগছি অনেকদিন ধরে । ডিপ্রেশন মনের অসুখ বা রোগ । ডিপ্রেশন মানে যে মন খারাপ নয় তা এখন অনেকেরই জানা হয়ে গেছে, কিন্তু ডি...